সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং কিশোর বিষন্নতা
//

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং কিশোর বিষন্নতা

123 বার পড়া হয়েছে

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম, বিশেষ করে ফেসবুক মানুষের মধ্যে কীভাবে মানসিক সমস্যা তৈরি করে, তা বর্তমান যুগে খুব বেশি পরিমাণে লক্ষণীয়। উপযুক্ত ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণে প্রতীয়মান  হয় যে, সামাজিক মাধ্যমগুলো ব্যক্তির ওপর নেতিবাচব প্রভাব ফেলে। বিশেষ করে তরুণরা যে সকল সমস্যায় পড়ে তা নিয়ে মাত্রাতিরিক্ত বিশ্লেষণ ও সমালোচনা করা হয়েছে। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে কিশোরদের সামাজিক মিডিয়া ব্যবহার বেশ কিছুটা বেড়েছে। ইউএসএ ২০২১ কমন সেন্স সেন্সাস (Common Sense Census, USA) অনুযায়ী:

 ● কিশোর-কিশোরীরা শ্রেণীকক্ষের বাইরে দিনে গড়ে ৮ ঘন্টা এবং ৩৯ মিনিট স্ক্রীন টাইম করেছে যা ২০১৯ থেকে ১৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

● কিশোর-কিশোরীরা প্রতিদিন গড়ে ৮৭  মিনিট সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে।

● ৬২ শতাংশ কিশোর বলেছে যে তারা প্রতিদিন সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে, কিন্তু মাত্র  ৩৪ শতাংশ কিশোর বলে যে তারা সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করা অনেক  উপভোগ করে। 

ইউএস সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল (US Center for Disease Control) দ্বারা একটি জাতীয় প্রতিনিধি সমীক্ষা অনুসারে, ২০২১ সালে, ৪৪ শতাংশ উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অবিরাম দুঃখ বা হতাশার অনুভূতির কথা জানিয়েছে। এই উদ্বেগ বয়স্ক কিশোরদের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। বিশ্বব্যাপী ৮০,০০০ টিরও বেশি শিশু এবং কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে মহামারী চলাকালীন ২৯ টি গবেষণার পর্যালোচনা করা হয়েছে। গবেষণা  গুলোতে প্রাপ্ত প্রতি চার যুবকের মধ্যে একজনের বিষন্নতার লক্ষণ ছিল, যা মহামারীর আগে বিশ্বব্যাপী হারের প্রায় দ্বিগুণ।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং কিশোর বিষন্নতা

নিঃসন্দেহে, বিষণ্ণতার অনুভূতি দুঃখ, ট্রমা, এবং কিশোর-কিশোরীদের যেকোনো চ্যালেঞ্জিং পরিস্থিতির সাথে সম্পর্কিত হতে পারে। তবুও, প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যবহার এবং হতাশার মধ্যে একটি স্বীকৃত যোগসূত্রের মাধ্যমে বিশ্লেষণ করা যায় যে কিশোর-কিশোরীদের সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার বিষন্নতা সৃষ্টিতে ভূমিকা পালন করতে পারে  কিনা, বা অন্যকোন মানসিক স্বাস্থ্যের লক্ষণগুলি তারা অনুভব করে কিনা। এছাড়াও ইন্টারনেট কি একটি সামাজিক লাইফলাইন অফার করে? নাকি এটি একটি ধ্বংসের কারণ? 

সংযোগ (Connection) এর মানে কি ?

বিশেষজ্ঞরা দীর্ঘদিন ধরে বিতর্ক করেছেন যে সোশ্যাল মিডিয়া  কিশোর-কিশোরীদের মানসিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি করতে পারে বা মাসিক স্বাস্থ্যের উন্নয়নে সাহায্য করতে পারে। ২০১৯-এর একটি গবেষণা থেকে জানা যায় যে কিশোর-কিশোরীরা তাদের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টগুলিতে প্রচুর সময় এবং প্রচেষ্টা ব্যয় করলে তাদের বিষন্ন মেজাজ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। ফিল্টার করা ছবি এবং কিউরেটেড টাইমলাইন কিশোর-কিশোরীদের আত্মসম্মানকে কমিয়ে দিতে পারে। তারা আরও হয়রানি এবং সাইবার বুলিং-এর সম্মুখীন হতে পারে। অন্যদিকে, প্রমাণও দেখায় যে সোশ্যাল মিডিয়া মানসিক স্বাস্থ্যকে উন্নত করে তুলতে পারে। কিশোর-কিশোরীরা যারা বিষণ্ণ বোধ করে তারা একই ধরনের সমস্যায় ভোগা বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ করতে অনলাইনে যেতে পারে। কিছু কিশোর-কিশোরী এমনকি ডিজিটাল সহায়তা গোষ্ঠী ও গঠন করতে পারে, সহানুভূতি এবং পরামর্শ প্রদান করে সহকর্মী দেরও হতাশার লক্ষণগুলির সাথে মোকাবেলা করে। ২০১৭ সালের একটি পর্যালোচনা অনুসারে, সোশ্যাল মিডিয়ার প্রভাব প্ল্যাটফর্মের চেয়ে ব্যক্তির উপর বেশি নির্ভর করে। দৃঢ় সামাজিক দক্ষতা এবং আত্মসম্মান সহ কিশোর-কিশোরীরা প্রায়ই তাদের জীবন উন্নত করতে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে। তারা স্কুলের বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ রাখতে বা ইন্টারনেট ফোরামের তাদের শিল্পকর্ম শেয়ার করতে অনলাইনে যেতে পারে। সোশ্যাল মিডিয়ার প্রভাব কিশোর-কিশোরীরা কীভাবে এটি ব্যবহার করে তার উপর নির্ভর করে।

সোশ্যাল মিডিয়ার কিছু খারাপ প্রভাব

সোশ্যাল মিডিয়া কিছু কিশোরদের জন্য বিষণ্ণতার ঝুঁকিতে অবদান রাখতে পারে। সামাজিক মিডিয়ার সম্ভাব্য মানসিক স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে :

সাইবার বুলিং 

যখন আপনার কিশোর কিশোরীরা অনলাইনে যায়, তখন তারা স্কুল থেকে বুলিং, বেনামী ট্রল, যৌন হয়রানি এবং আরও অনেক কিছুর সম্মুখীন হতে পারে। ২০২০ সালের একটি রিসার্চ অনুসারে, ইন্টারনেট হয়রানি কিশোর-কিশোরীদের মেজাজে তীব্র পরিবর্তন ঘটাতে পারে, প্রায়ই তারা লজ্জিত, ভয় এবং অপমানিত বোধ করে । কিছু ক্ষেত্রে, সাইবার বুলিং আত্মহত্যার চিন্তার কারণ হতে পারে।

সামাজিক তুলনা

সোশ্যাল মিডিয়া কিশোর-কিশোরীদের তাদের সমবয়সীদের সাথে তুলনা করতে উৎসাহিত করে, ফ্যান-ফলোয়ার্স এর সংখ্যা, মন্তব্য, লাইক ইত্যাদি পরিমাপ করাতে আগ্রহী করে। সামাজিক অবস্থা সম্পর্কে একটি সাধারণ ধারণা থাকা স্বাভাবিক, তবে আপনি  অবস্থান শৃঙ্খলে কোথায় ফিট করছেন তা নিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কাটানো অনুচিত। বিশেষজ্ঞরা অত্যধিক সামাজিক তুলনা করার প্রবণতাকে বিষন্নতার সাথে যুক্ত করেছেন। যে কিশোর কিশোরীরা তাদের সময় অন্যের জীবনকে হিংসা করে বা তাদের নিজের ত্রুটিগুলি নিয়ে চিন্তা করার জন্য ব্যয় করে তাদের উচ্চস্তরের বিষন্নতা থাকে।

ক্ষোভ

সোশ্যাল মিডিয়া একটি সুপরিচিত টাইম সিঙ্ক। অনেক মানুষ বিশেষ করে কিশোর-কিশোরীরা ছুটির সময় মজাদার ক্রিয়াকলাপ করার পরিবর্তে উইক এন্ডের বেশিরভাগ টুইটার ব্রাউজিং করে। একসময় তারা নিজেরাই হঠাৎ অনুশোচনা অনুভব করে কেননা বেশিরভাগ সময় তারা নেটওয়ার্কের মধ্য দিয়ে কাটায়। কিছু কিশোর-কিশোরীরা ডিজিটাল জগতে এতটাই জড়িয়ে যেতে পারে যে তারা মৌলিক কার্যকলাপ এবং স্ব-যত্ন সম্পর্কে ভুলে যায়। তারা খাবার এড়িয়ে যায়,  কম সময় ঘুম যায়  এবং তাদের  দৈনিক শারীরিক কার্যকলাপ  সম্পন্ন করতে পারে না। 

সোশ্যাল মিডিয়ার সম্ভাব্য সুবিধা

সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যবহার কিছু সম্ভাব্য ঝুঁকি তৈরি করলেও, এটি মানসিক সমর্থনের জন্য একটি শক্তি শালী হাতিয়ার হিসেবেও কাজ করতে পারে। সোশ্যাল মিডিয়ার সম্ভাব্য কিছু মানসিক স্বাস্থ্য সুবিধার মধ্যে রয়েছে :

 বন্ধু এবং পরিবারের সঙ্গে সংযোগ

সোশ্যাল মিডিয়া প্রিয়জনের সাথে যোগাযোগ রাখা আগের চেয়ে সহজ করে তুলেছে, বিশেষ করে যদি আপনি দূরে থাকেন। সামাজিক সংযোগ অবশ্যই মানসিক সুস্থতার ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে, বিশেষ করে কিশোর কিশোরীদের জন্য যখন তাদের মস্তিষ্ক পরিপক্ক হয়। দূরবর্তী স্কুলে পড়া এবং লকডাউনে পড়াশোনার ব্যাঘাতের সময়, অনেক কিশোর কিশোরী মানসিক চাপ এবং একাকীত্ব বোধ করেছিল। কিন্তু উপরে উল্লিখিত ২০২১ সিডিসি সমীক্ষার ফলাফল অনুসারে, উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা যারা স্কুলে প্রাপ্তবয়স্কদের এবং সমবয়সীদের সাথে বেশি সংযুক্ত বোধ করেছিল তাদের নিম্নলিখিত কাজগুলো করার সম্ভাবনা কম ছিল:

  • ক্রমাগত দু: খি ত বা আশাহীন মনোভাব
  • আত্মহত্যার কথা চিন্তা
  • আত্মহত্যার চেষ্টা

নতুন মানুষ সাক্ষাৎ

যখন কিশোর কিশোরীরা স্কুলে বা বাড়ি তে ফিট করে না, তখন তারা অনলাইনে তাদের  পছন্দের সাহচর্য খুঁজে পেতে পারে। ডিজিটাল যোগাযোগ ব্যবস্থা গভীর বন্ধুত্ব এবং জীবন-পরি বর্তনকারী বন্ধন প্রদান করতে পারে।

তথ্য

মানসিক স্বাস্থ্যের বিষয়টি তরুণ প্রজন্মের মধ্যে অনেক গুরুতর ব্যাপার হয়ে উঠেছে। কিশোর কিশোরীরা সোশ্যাল মিডিয়া ব্রাউজ করার সময়, তাদের সামনে এমন পোষ্ট চলে আসতে পারে যেখানে প্রভাবশালী বা সমবয়সীরা বিষণ্ণতার মতামত প্রকাশ করছে যা মানসিক স্বাস্থ্য পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে। এই সচেতনতামূলক পোস্টগুলিতে সর্বদা খুব বেশি বিবরণ থাকেনা,  তবে যদি তারা আরও তথ্যের জন্য অনুসন্ধান করে তাহলে এ ধরনের সমস্যা তৈরী হবে না। তবে এটা অস্বীকার করা যায় না যে সোশ্যাল মিডিয়া তথ্যবহুল এবং হরেক রকমের তথ্য প্রদানের সাহায্য করে।  উপযুক্ত ক্ষেত্রে উপযুক্ত তথ্য পৌঁছানো হলে যেকোনো ধরনের সমস্যা এড়ানো সম্ভব। 

ভারসাম্য তৈরি করা 

সোশ্যাল মিডিয়ায় আপনার কিশোরদের সামাজিক অস্বাস্থ্যকর সম্পর্ক থাকতে পারে কেননা:

  • পিতা মাতা তাদের অ্যাকাউন্ট চেক করতে পারে না, কারণ তারা তাদের  মোবাইল নিয়মিত চেক করার ফলে রাগান্বিত অনুভব করে।
  • তারা সোশ্যাল মিডিয়া ঠিকমতো হ্যান্ডেল করতে পারেনা এবং কিছু ব্যক্তিগত তথ্য প্রকাশ করে ফেলে। 

আপনি যদি মনে করেন যে সোশ্যাল মিডিয়া আপনার সন্তানের মানসিক স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করতে শুরু করেছে, আপনি তাদের ডিভাইসগুলি সম্পূর্ণরূপে বাজেয়াপ্ত করতে প্রলুব্ধ বোধ করবেন না। মনে রাখা উচিত, আধুনিক কিশোর কিশোরীদের সামাজিকীকরনের একটি মূল উপায় সোশ্যাল মিডিয়া তৈরি করে। বাস্তবিকভাবে, অভিভাবকত্বের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল বাচ্চাদের শেখানো যে কীভাবে এই জিনিসগুলি কে দায়িত্বের সাথে উপভোগ করতে হয় যাতে তারা প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার সাথে সাথে এটি চালিয়ে যেতে পারে। 

যদিও সোশ্যাল মিডিয়া কিশোরদের হতাশার জন্য একটি সহজ উপায় হতে পারে, কিন্তু ডিজিটাল ল্যান্ডস্কেপ শুধুমাত্র ভাল বা খারাপ হতে পারে না। বিষন্নতায় কাটানো কিছু কিশোর কিশোরী অনলাইনে পাওয়া সামাজিক সমর্থন থেকে উপকৃত হতে পারে,  আবার অন্যান্য ক্ষেত্রে দেখা যায় যে সামাজিক মিডিয়া ব্যবহার করা তাদের লক্ষণগুলি কে আরও খারাপ করে তোলে। জীবনের অন্যান্য অনেক জিনিসের মত, সোশ্যাল মিডিয়া সাধারণত পরিমিতভাবে ব্যবহার করা উচিত। আপনি যদি আপনার কিশোর-কিশোরীর সামাজিক মিডিয়া অভ্যাস সম্পর্কে চিন্তিত হন, তাহলে একটি ভাল প্রথম ধাপ হল তাদের সাথে সাবলীল কথোপকথন শুরু করা। অনলাইন আচরণ সম্পর্কিত কিছু গভীর মানসিক যন্ত্রণার তথ্য উন্মুক্ত করতে পারলে তাদের চাহিদা অনুযায়ী পদক্ষেপ নিতে পারবেন এবং একজন থেরাপিস্টের সাথে তাদের সংযোগ করে সাহায্যের ব্যবস্থা করতে পারেন।

রেফারেন্স 

1.      Dyer HT. Defining Social Media. It’s Complicated. In Designing the Social 2020 (pp. 15-43). Springer, Singapore.

2.      Pantic I. Online social networking and mental health. Cyberpsychology, Behavior, and Social Networking. 2014 Oct 1;17(10):652-7.

আমি আবু আমের হিশাম, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগে স্নাতকোত্তর কোর্সে অধ্যয়নরত এবং একই বিভাগ থেকে বি. ফার্ম(প্রফেশনাল) সম্পন্ন করেছি। ঔষধ সম্পর্কিত জ্ঞান আমার লেখনীর মাধ্যমে সর্বসাধারণের মধ্যে পৌছে দিতেই এ ক্ষুদ্র প্রয়াস। ভবিষ্যতে একজন ভালো গবেষক হতে চাই।

একটি প্রত্যুত্তর করুন

Your email address will not be published.