Patient Compliance in Type 2 Diabetes Explained in Bangla
//

বাংলাদেশে টাইপ- ২ ডায়াবেটিস ব্যবস্থাপনায় পেশেন্ট কমপ্লায়েন্সের গুরুত্ব

453 বার পড়া হয়েছে

পেশেন্ট কমপ্লায়েন্স বা অনুবর্তিতা হল স্বাস্থ্য রক্ষা ও পরিচর্যার একটি মূল ধারণা। এটি ডায়াবেটিস সহ স্বাস্থ্য পরিষেবার সমস্ত ক্ষেত্রকে প্রভাবিত করে৷ নন-কমপ্লায়েন্স অথবা অ-সম্মতি পূর্বে অনেক রোগীর সাথে সংযুক্ত একটি প্রেক্ষাপট ছিল। গত কয়েক দশক ধরে রোগীর ডাক্তার এবং অন্যান্য হেলথ প্রফেশনাল কর্তৃক প্রদানকৃত নিয়মকানুন মেনে চলাকে কেন্দ্র করে করে প্রচুর পরিমাণে গবেষণা হয়েছে যা পেশেন্ট কমপ্লায়েন্সকে (patient compliance) প্রভাবিত করে এমন অনেক কারণকে প্রকাশ করেছে।

ডাক্তার-রোগীর সম্পর্ক সহ কমপ্লায়েন্সকে প্রভাবিত করে এমন কারণগুলির আরও ভাল বোঝার জন্য, “সহযোগিতা বা concordance’’ শব্দটির আবির্ভাব হয়েছে। কনকর্ডেন্স সেই প্রক্রিয়াগুলিকে হাইলাইট করে, যা ওষুধ গ্রহণের সম্মতির সাথে সম্পর্কিত ও কার্যকর থেরাপিউটিক এর জন্য অপরিহার্য এবং দীর্ঘমেয়াদী চিকিৎসা গ্রহণের পুরো সময়কালে রোগীকে সমর্থন করে।

এই ওয়েবসাইটে আরো পড়ুন –

ডায়াবেটিসের মতো একটি পরিস্থিতিতে, যার অনেকগুলি সম্ভাব্য দীর্ঘমেয়াদী জটিলতা রয়েছে, রোগীর অবস্থার উন্নতির জন্য স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থায় একমত হওয়া অত্যাবশ্যক। ডায়াবেটিস মেলিটাস (diabetes mellitus) সারা বিশ্বে দেখা যায়, তবে উন্নয়নশীল দেশগুলিতে যেমন বাংলাদেশে এটি আরও সাধারণ (বিশেষ করে টাইপ-২ ) হয়ে উঠছে। দ্রুত নগরায়ন এবং জীবনযাত্রার পরিবর্তনের কারণে এটি মহামারী সংক্রান্ত পরিবর্তনের অবস্থায় রয়েছে। ডায়াবেটিসের সামগ্রিক ব্যবস্থাপনায় পেশেন্ট কমপ্লায়েন্সের প্রভাব তীব্র কারণ এটি ডায়াবেটিস আক্রান্ত সকল ধরনের জটিলতা কমাতে সাহায্য করে। 

ডায়াবেটিস ব্যবস্থাপনায় পেশেন্ট কমপ্লায়েন্সের গুরুত্ব মূল্যায়ন

ডায়াবেটিস মেলিটাস বিপাকীয় রোগের একটি গ্রুপ হিসাবে স্বীকৃত হয় যখন একজন ব্যক্তির রক্তে অতিরিক্ত মাত্রায় শর্করা থাকে, যার কারণ হয় শরীর যথেষ্ট ইনসুলিন তৈরি করে না নতুবা কোষগুলি উৎপাদিত ইনসুলিনের প্রতি সাড়া দেয় না।

মেডিসিনের অধ্যাপক ডাঃ মোহাম্মদ ইব্রাহিম প্রথম বাংলাদেশে ডায়াবেটিক রোগীর কথা বিবেচনা করে বলেছিলেন যে ডায়াবেটিস এমন একটি রোগ যেখানে কেবল ডাক্তার নয় রোগীদের ও ডায়াবেটিক যত্নের প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত হওয়া উচিত। বিষয়টিকে সামাজিক-চিকিৎসা বিষয়ক তথ্য হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব রিসার্চ অ্যান্ড রিহ্যাবিলিটেশন ফর ডায়াবেটিস (বারডেম) প্রতিষ্ঠা করেন।

ডায়াবেটিস রোগীদের নিজস্ব যত্ন এবং চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী নিয়ম মেনে চলা প্রবণতা ব্যাধি প্রশমনে ৯৫% ভূমিকা পালন করে, যেখানে চিকিৎসকরা শুধুমাত্র একটি সহযোগী ভূমিকা মাত্র। 

উম্মে সালমা মুক্তা, উম্মে সায়কা, প্রদীপ সেন গুপ্ত (গবেষণা সহযোগী, গবেষণা ও মূল্যায়ন বিভাগ, ব্র্যাক, ঢাকা, বাংলাদেশ) দ্বারা পরিচালিত একটি গবেষণায় কিছু মৌলিক প্রশ্ন অনুসন্ধান করা হয়েছে। যেমন, রোগীদের প্রেসস্ক্রিপশন (prescription) সহ অন্যান্য বিষয়ে অনুবর্তিতা ডায়াবেটিসের জটিলতা প্রশমনে কোন প্রভাব রাখে কি? সেই সাথে পেশেন্ট কমপ্লায়েন্স কি ডায়াবেটিসের সামগ্রিক ব্যবস্থাপনার উপর কোন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে?

পরিস্থিতি ব্যাপকভাবে তুলনা করার জন্য সমীক্ষাটি দুটি সেটিংসে পরিচালিত হয়েছিল: শহর ও গ্রামীণ এলাকাভিত্তিক ডায়াবেটিক রোগী। বাংলাদেশে বেশিরভাগ শহুরে  ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীরা সচেতন এবং চিকিৎসার সঠিক নিয়মকানুন মেনে চলে। অতীতে গ্রামীণ জনগণ এটিকে উপেক্ষা করত, কিন্তু বর্তমানে সচেতনতা বৃদ্ধির সাথে সাথে তারা চিকিৎসার বিষয়ে আরও গুরুত্ব আরোপ করছে৷ ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী নিয়মিত ওষুধ গ্রহণ খাদ্য

নিয়ন্ত্রণ মেনে চলার কারণে রোগীর জটিলতার অনেক কমেছে।  ডায়াবেটিস ব্যাধির ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে পেশেন্ট কমপ্লায়েন্সের ভূমিকা সম্পর্কিত এই গবেষণায় প্রাপ্ত ফলাফল সমূহ,

  • শহুরে এবং গ্রামীণ উভয় এলাকার বেশিরভাগই নিয়মিত ওষুধ গ্রহণ করেন কিন্তু শহুরে ৪৬% অংশগ্রহণকারী ডাক্তার কর্তৃক নির্ধারিত খাদ্য নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি মেনে চললেও, ৬৪.৪% গ্রামীণ অংশগ্রহণকারী তা মেনে চলেনি । অন্যদিকে ১৬.৭% গ্রামীণ অংশগ্রহণকারী ওজন নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি মেনে চলেছে যেখানে শহুরে আক্রান্ত ব্যক্তির মেনে চলার প্রবণতা মাত্র ৭.৫%। ইনসুলিনের অনুপলব্ধতা এবং ব্যয়ের কারণে, ডাক্তার প্রেসক্রাইব করা সত্ত্বেও উভয় ক্ষেত্রেই নিয়ম অনুযায়ী নেয়ার প্রবণতা সীমিত।
  • ৪৭-৬১ বছর বয়সী রোগীদের মধ্যে ৪৩.৭২% পেশেন্ট কমপ্লায়েন্স বা সম্মতি দেখা গিয়েছে। যদিও এই বয়সের ৩.২৮% রোগী সঠিক চিকিৎসা পদ্ধতি অনুসরণ করেননি। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের জন্য সম্মতি সম্পর্কে সচেতন ছিল নিকটতম বয়সের ৩২-৪৬ বছরের গ্রুপ (৩৩.৮৮%)। 
  • অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে নির্দেশনা অনুসারী বেশি ছিল যাদের প্রাথমিক স্তরের শিক্ষা ছিল । অন্যান্য শিক্ষাগত প্রাপ্ত গোষ্ঠী যেমন শিক্ষার স্নাতক স্তর এর তুলনায় এই গোষ্ঠীতে চিকিৎসার কমপ্লায়েন্স (সম্মতি) তুলনামূলক কম। 
  • সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে বিশাল সংখ্যাগরিষ্ঠ বলেছেন, প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী এবং ডাক্তার কর্তৃক প্রদানকৃত অন্যান্য ডায়াবেটিস সম্পর্কিত স্বাস্থ্য বিষয়ক নির্দেশনা মেনে চলার পর স্বাস্থ্যের অবস্থার পরিবর্তন অনুযায়ী তারা আগের চেয়ে ভাল অনুভব করেছেন। কেউ কেউ আরও বলেছেন যে তারা এখন আগের মতো স্বাভাবিক কাজ করতে পারেন। তাদের প্রায় সকলেই এও জানিয়েছেন যে তাদের এখন অস্বস্তি, দুর্বলতা, প্রস্রাবের সমস্যা এবং ঘামের সমস্যা নেই। তারা বিশ্বাস করে যে এই ইতিবাচক পরিবর্তনগুলি একটি সুষম খাদ্য গ্রহণ এবং অন্যান্য ক্রিয়াকলাপ যেমন চিকিৎসকের দ্বারা প্রস্তাবিত শারীরিক ও মানসিক ব্যায়াম, যোগব্যায়াম সহ ওজন নিয়ন্ত্রণের জন্য কিছু নিয়মিত ব্যায়াম, প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী সঠিক ওষুধ খাওয়া, ইনজেকশন, কিছু ভেষজ ওষুধ গ্রহণ যেমন শুকনো বীজ (কালো বেরি), নয়নতারা ফুল (চীন গোলাপ), শিকড় ইত্যাদির জন্য সম্ভব হয়েছে।

সুতরাং নিঃসন্দেহে, বহুমূত্র রোগ পরিচালনায় পেশেন্ট কমপ্লায়েন্স ও বহুমূত্র সংক্রান্ত জটিলতার সাথে খুব গুরুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বিদ্যমান। প্রেসক্রিপশন সহ অন্যান্য নিয়ম কানুন মেনে চলার প্রবণতা লিঙ্গ, শিক্ষা, পেশা, চিকিৎসার সুবিধা ইত্যাদির মতো বিভিন্ন কারণের দ্বারা প্রভাবিত হয়৷

কিন্তু যারা সঠিক ওষুধ এবং নিয়মকানুন অনুসরণ করে রোগীরা কম জটিলতার সম্মুখীন হয়৷ তাদের মতামত অনুযায়ী ওষুধের চেয়ে খাদ্য, ব্যায়াম, ওজন নিয়ন্ত্রণ অত্যধিক গ্রহণীয়। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে, যেসব টাইপ ২ ডায়াবেটিস (type 2 diabetes) রোগীরা যথাযথ  কমপ্লায়েন্স বা অনুবর্তিতা বজায় রেখেছেন তারা অনুসরণ না করা রোগীদের তুলনায় কম জটিলতার সম্মুখীন হয়। 

ডায়াবেটিসের জটিলতা কমাতে পেশেন্ট কমপ্লায়েন্স প্রতিষ্ঠায় পেশাদারদের ভূমিকা 

রোগ পরিচালনার ক্ষেত্রে রোগীদের শিক্ষা এবং চিকিৎসার সাথে সম্মতি (কমপ্লায়েন্স) অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। ওষুধ এবং ইনসুলিনের অনুপযুক্ত ব্যবহার অত্যন্ত বিপজ্জনক হতে পারে যার ফলে হাইপো- বা হাইপার-গ্লাইসেমিয়া (hypo/hyper-glycemia) হয় যা এক্সারসাইজ (exercise), ডায়েট (diet) এবং ওজন কমানোর (weight loss) বিষয়ে জ্ঞানের অভাব দ্বারা প্রভাবিত হয়। বাংলাদেশের বহুমূত্র আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে সম্মতি অনুসরণ করতে পাওয়া বাধাগুলি হচ্ছে চিকিৎসার নিয়ম অনুসরণ করতে আর্থিক সমস্যা, সাংস্কৃতিক মূল্যবোধ, বিশ্বাস, নিয়ম এবং আচরণ।

ডায়াবেটিস প্রায়শই অতিরিক্ত মিষ্টি (sugar) খাওয়া, মানসিক চাপ (mental stress) এবং উদ্বেগের (anxiety) বা অনৈতিক আচরণের কারণে হয় বলে মনে করা হয়। প্রায়শই যে রোগীরা স্বাস্থ্যকর আচরণ করেন না এবং তাদের স্বাস্থ্যের যত্ন নেন না তারা বেশিরভাগই ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হন। 

ডায়াবেটিস (বিশেষত টাইপ- ২) এবং প্রিডায়াবেটিস (prediabetes) বাংলাদেশী প্রাপ্তবয়স্ক জনসংখ্যার একটি উল্লেখযোগ্য অনুপাতকে (এক-চতুর্থাংশের বেশি) প্রভাবিত করে।

স্থূলতা হ্রাস এবং উচ্চ রক্তচাপ ব্যবস্থাপনার উপর অবিরত নজরদারি, কার্যকর প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা, রোগীদের চিকিৎসার সাথে সম্মতি বা কমপ্লায়েন্সের গুরুত্ব আরোপ করার মনোভাব সৃষ্টি করা জরুরিভাবে প্রয়োজন যেগুলো বাস্তবায়নে চিকিৎসক (doctor), ফার্মাসিস্ট (pharmacist) এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য পেশাদাররা (nurse) দুর্দান্ত ভূমিকা পালন করতে পারেন।

রোগীর চিকিৎসার সাথে সম্মতি বা কমপ্লায়েন্সে, স্বাস্থ্যসেবার সাথে যুক্ত পেশাদারদের ভূমিকার মধ্যে রয়েছে ক্লায়েন্টকে চিকিৎসার বিষয়ে পর্যাপ্ত তথ্য প্রদান করা।

পেশাদারদের উচিত রোগীকে সম্মতির সুবিধার্থে শিক্ষিত করা সহ নিম্নলিখিত কার্যক্রম সম্পাদন করা:

  • বহুমূত্র রোগ সংক্রান্ত সকল নির্দেশাবলী এবং ঔষধ সমূহের একটি তথ্য লিফলেট তৈরি করা (লিখিত বা মৌখিক)।
  • নিয়ম এবং নির্দেশাবলী বজায় না রাখার খারাপ প্রভাব সম্পর্কে কথা বলা।
  • রোগীদের সাথে সঠিকভাবে যোগাযোগ এবং সহযোগিতা করা।
  • ইনসুলিন সহ টাইপ-২ ডায়াবেটিসের  অন্যান্য ঔষধ সামগ্রী কেনার ক্ষেত্রে রোগীর আর্থিক অবস্থা বিবেচনা করা এবং সেই অনুযায়ী চিকিৎসা প্রদান করা।
  • স্বাস্থ্য সাক্ষরতার মূল্যায়ন এবং জটিলতা হ্রাস করা।

আরও পড়তে পারেন

  1. Mukta US. How does the type 2 diabetes mellitus patients’ compliance to managing diabetics in Bangladesh. Open Access Library Journal. 2015;2(01):1.
  2. Hossain MB, Khan MN, Oldroyd JC, Rana J, Magliago DJ, Chowdhury EK, Karim MN, Islam RM. Prevalence of, and risk factors for, diabetes and prediabetes in Bangladesh: Evidence from the national survey using a multilevel Poisson regression model with a robust variance. medRxiv. 2021 Jan 1.
  3. Chatterjee JS. From compliance to concordance in diabetes. Journal of medical ethics. 2006 Sep 1;32(9):507-10.

আমি মেরিনা আকতার, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বি.ফার্ম (প্রফেশনাল) সম্পন্ন করেছি এবং বর্তমানে একই বিভাগে মাস্টার্স কোর্সে অধ্যয়নরত আছি। বিভিন্ন তথ্যমূলক ওয়েবসাইট, ব্লগ, অনলাইন জার্নাল এবং নিবন্ধগুলি নিয়মিত অনুসরণ করি এবং সৃজনশীল কন্টেন্ট লিখালিখি করাতে বেশ আগ্রহ পাই। যুক্তি ও আলোচনার মাধ্যমে একটি নির্দিষ্ট বিষয়কে যথাযথভাবে ব্যাখ্যা করাই আমার নিরন্তর চেষ্টা। আমি ভবিষ্যতে একজন গবেষক হতে চাই।

1 Comment

একটি প্রত্যুত্তর করুন

Your email address will not be published.