Marijuana addiction in Pregnant woman
/

গাঁজা আসক্তি, প্রেগনেন্সির উপর এর প্রভাব ও বাংলাদেশে এর বর্তমান অবস্থা

444 বার পড়া হয়েছে

গাঁজা (Marijuana) কি? 

গাঁজা হল ক্যানাবিস স্যাটিভা (Cannabis sativa) উদ্ভিদের শুকনো অংশ। এটি সাধারনত উচ্ছ্বাস, মনের শিথিলতা এবং স্নায়ুর সংবেদনশীল ক্রিয়া ও এর উপলব্ধি সৃষ্টি করতে গ্রহন করা হয়। গাঁজার মাঝে সক্রিয় যৌগটি হল “Delta-9-tetrahydrocannabinol (THC)” 

গাঁজা আসক্তি

গাঁজায় THC নামক রাসায়নিক আছে। এটা মস্তিষ্কের তৈরি (Anandamide) এর মত, যা সারা শরীরে স্নায়ু কোষের মধ্যে বার্তা পাঠায়। নিয়মিত গাঁজা সেবন করলে, মস্তিষ্ক তার নিজস্ব সংস্করণ Anandamide তৈরি করা বন্ধ করে দিতে পারে এবং পরিবর্তে THC-এর উপর নির্ভর করা শুরু করে দেয়। প্রায় 10% লোক যারা নিয়মিত গাঁজা ব্যবহার করে তারা কোনো না কোনো এক সময়ে এতে আসক্ত হয়ে পড়ে। 

গর্ভ অবস্থা ও নবজাতকের উপর গাঁজার প্রভাব

গাঁজা গর্ভাবস্থায় মায়ের প্ল্যাসেন্টা অতিক্রম করতে পারে। এটি গর্ভাবস্থায় সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত “অবৈধ” ওষুধ হিসেবে ধরা হয়।

গর্ভাবস্থায় গাঁজা ব্যবহারের সম্ভাব্য প্রভাবগুলি কী কী? 

গবেষনায় দেখা গেছে, গর্ভাবস্থায় গাঁজা ব্যবহারের ফলে অনেক ধরনের জটিলতার যে ঝুঁকি তা ধীরে ধীরে বেড়ে যায়। যার ফলে এটি সন্তানের উপর বিরূপ প্রভাব ফেলে। যেমন:

  • কম ওজন (জন্মের সময়)
  • নির্দিষ্ট সময়ের পূর্বে জন্ম 
  • মাথার পরিধি ছোট হয়ে যাওয়া
  • ছোট দৈর্ঘ্য হওয়া
  • মৃতপ্রসব হওয়া

এমনকি এর প্রভাব গর্ভ অবস্থার পরেও পড়তে পারে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে, THC-এর সংস্পর্শে আসা শিশুর মস্তিষ্কের পরবর্তী বিকাশকে প্রভাবিত করতে পারে। 

আরও পড়ুনঃ গর্ভাবস্থায় হিরোইন-মরফিন সেবন করলে নবজাতকের উপর তার প্রভাব কি?

গাঁজার আসক্তি ও বাংলাদেশ

২০১৮ সালে সংবাদপত্র, “প্রথম আলো” এর এক রিপোর্ট অনুযায়ী, বাংলাদেশের প্রায় ৩৫ লক্ষের উপর মাদক আসক্তকারী খুঁজে পাওয়া যায়। এ সংখ্যা বর্তমানে দ্বিগুন আকারে বৃদ্ধি পেয়েছে। এ সমীক্ষাটি অনুযায়ী, 

  • ১৮ বছর বা তার ঊর্ধ্বে মাদকাসক্ত হচ্ছে ৩৫ লাখ ৩৫ হাজার ৩০০ জন
  • মাদক ব্যবহারকারীর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি ঢাকায়
  • মাদকের মাঝে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় গাঁজা 

মাদকাসক্তের সংখ্যা নির্ধারণে দেশে প্রথমবারের মতো এ সমীক্ষাটি পরিচালিত হয়। জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট এই সমীক্ষাটি পরিচালনা করে। কিন্তু এরপরেও বর্তমানে মেয়েরা অনেক বেশী ঝুঁকে যাচ্ছে, এ মাদকের আস্তানায় যার মধ্যে বেশী গ্রহন করছে, “গাঁজা”। তাই এর প্রভাব খুবই উদ্বেগজনক।

একজন মানুষের শরীরে গাঁজার প্রভাব

মস্তিষ্ক

মারিজুয়ানার প্রধান সাইকোঅ্যাকটিভ উপাদান হলো, ডেল্টা-9 টেট্রাহাইড্রোকানাবিনল (THC), যা মস্তিষ্কের ক্যানাবিনয়েড রিসেপ্টরকে সংযুক্ত করে। এই রিসেপ্টরগুলি মস্তিষ্কের স্নায়ুর সাথে সংযোগ করে আনন্দ, স্মৃতি, চিন্তা, একাগ্রতা, সংবেদনশীল এবং সমন্বিত শরীর, চিন্তার সকল আন্দোলনকে প্রভাবিত করে। একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে যে, গাঁজা ব্যবহারে বিভ্রম বিশৃঙ্খল চিন্তাভাবনা, হ্যালুসিনেশন, আত্মঘাতী আচরণ হতে পারে।

হৃদপিন্ড

গাঁজার ধোঁয়া নিঃশ্বাসে নিলে হৃদস্পন্দনের গতি বেড়ে যায়, যা হৃদপিন্ডকে আরো কঠোর পরিশ্রম করতে বাধ্য করে। এই প্রভাবগুলি – যা 15 মিনিটে মধ্যে শুরু হয় এবং তিন ঘন্টা পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে।

সুতরাং, তা হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়। প্রকৃতপক্ষে, গবেষণা দেখায় যে গাঁজা গ্রহনের পর প্রথম ঘন্টার মধ্যে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি পাঁচগুণ পর্যন্ত বাড়তে পারে৷ এর রাসায়নিকগুলো, হার্ট ফেইলিউরের ঝুঁকি এবং অ্যাট্রিয়াল ফাইব্রিলেশন নামক হার্টের রিদম ডিসঅর্ডারের সাথেও যুক্ত। অল্পবয়সিদের মধ্যে ঘন ঘন গাঁজা ব্যবহার এমনকি যারা ড্রাগ ব্যবহার করে না তাদের তুলনায় স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ায়।

ফুসফুস

গাঁজার ধোঁয়ায় মূলত তামাকের ধোঁয়ার মতো একই রকম অনেক বিষাক্ত পদার্থ রয়েছে। এদের মাঝে বেশীর ভাগ বিরক্তিকর এবং কার্সিনোজেন (ক্যান্সার সৃষ্টিকারী রাসায়নিক) উপাদান রয়েছে। গাঁজা সেবনের ফলে ব্রঙ্কাইটিস, কাশি এবং শ্লেষ্মা উৎপাদনেরও বেশি ঝুঁকি হতে পারে, তবে বেশী উদ্বেগের কারন হচ্ছে, এই লক্ষণগুলি সাধারণত মারিজুয়ানা বা গাজাঁ ধূমপান ছেড়ে দিলেও বেড়ে যেতে পারে। 

হাড়

২০১৭ সালের একটি গবেষণা অনুসারে, নিয়মিতভাবে ভারী গাঁজা ব্যবহারে হাড়ের ঘনত্ব কমাতে পারে। বিশেষ করে, গবেষকরা দেখেছেন যারা গাঁজা বেশি ব্যবহার করেছেন (জীবদ্দশায় ৫,০০০ বার) তাদের হাড়ের ঘনত্ব ৫% কম, যারা গাঁজা ব্যবহার করেননি এদের তুলনায়। হাড়ের ঘনত্বের এই কমতি হাড়-সম্পর্কিত স্বাস্থ্য সমস্যার ঝুঁকি বাড়ায়, যেমন: “অস্টিওপোরোসিস”, যা হাড় ভাঙার ঝুঁকি বাড়াতে পারে। 

ক্যান্সার

গাঁজা শরীরে THC এবং অন্যান্য ক্যানাবিনয়েড সরবরাহ করে। তাছাড়া এটি কিছু ক্ষতিকারক পদার্থও সরবরাহ করে থাকে, যার মধ্যে অনেকগুলি টক্সিন এবং তামাকের ধোঁয়ায় পাওয়া কার্সিনোজেন (ক্যান্সার-সৃষ্টিকারী রাসায়নিক) রয়েছে, যা ফুসফুস এবং কার্ডিওভাসকুলার সিস্টেমের জন্য ক্ষতিকারক। খুব সম্প্রতি এক গবেষনায় দেখা গিয়েছে, ঘন ঘন, বা দীর্ঘস্থায়ী গাজাঁ ধূমপান এবং টেস্টিকুলার ক্যান্সার (নন-সেমিনোমা-টাইপ) এর মধ্যে একটি সংযোগ পাওয়া গিয়েছে। যেহেতু গাজাঁ বিভিন্ন উপায়ে ব্যবহার করা যেতে পারে, বিভিন্ন স্তরের সক্রিয় যৌগগুলির সাথে, এটি প্রতিটি ব্যক্তিকে আলাদাভাবে প্রভাবিত করতে পারে। তবে ক্যান্সারের উপর গাঁজা ব্যবহারের সম্পূর্ণ প্রভাব বোঝার জন্য আরও গবেষণা প্রয়োজন।

মানসিক স্বাস্থ্য

  • গাঁজা, বিশেষ করে ঘন ঘন (দৈনিক বা প্রায় প্রতিদিন) এবং উচ্চ মাত্রায় ব্যবহারের ফলে, বিভ্রান্তি এবং কখনও কখনও অপ্রীতিকর চিন্তাভাবনা বা উদ্বেগ এবং তীব্র অনুভূতির সৃষ্টি করতে পারে৷ যারা গাঁজা ব্যবহার করেন তাদের অস্থায়ী সাইকোসিস (বাস্তব, হ্যালুসিনেশন) এবং দীর্ঘস্থায়ী মানসিক ব্যাধি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি হয়ে থাকে, যার মধ্যে রয়েছে সিজোফ্রেনিয়া (এক ধরনের মানসিক রোগ যেখানে লোকেরা এমন কিছু দেখতে বা শুনতে পারে যা সত্যিই নেই)। 
  • গাঁজা ব্যবহারের সাথে বিষণ্নতার বিশাল সম্পর্ক পাওয়া গিয়েছে সম্প্রতি এক গবেষনায়।

তাছাড়া এটি, সামাজিক উদ্বেগ এবং আত্মহত্যা, আত্মহত্যার প্রচেষ্টা এমনকি আত্মহত্যার চিন্তা জনিত ব্যাপার প্রভাবিত করে থাকে।

  • গাজাঁ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ফেডারেল অবৈধ ড্রাগ; ৪৮.২ মিলিয়ন মানুষ, বা প্রায় ১৮% আমেরিকান, ২০১৯ সালে অন্তত একবার হলেও এটি ব্যবহার করেছেন।
  •  সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে গাঁজা সেবনকারী ১০ জনের মধ্যে ৩ জনের গাঁজা ব্যবহারের ব্যাধি রয়েছে। 
  • যারা ১৮ বছর বয়সের আগে গাঁজা ব্যবহার করা শুরু করে তাদের ক্ষেত্রে গাঁজা ব্যবহারের ব্যাধি হওয়ার ঝুঁকি সব থেকে বেশি।
  •  গাঁজা ব্যবহার সরাসরি মস্তিষ্ককে প্রভাবিত করে থাকে, বিশেষ করে স্মৃতিশক্তি, শেখার আগ্রহ, মনোযোগ, সিদ্ধান্ত গ্রহণ, সমন্বয়, আবেগ এবং প্রতিক্রিয়া এর জন্য দায়ী মস্তিষ্কের অংশগুলির উপর। শিশু এবং কিশোর বিশেষ করে গাঁজা এর বিরূপ প্রভাবের জন্য সংবেদনশীল।
  • দীর্ঘমেয়াদী বা ঘন ঘন গাঁজা ব্যবহার কিছু ব্যবহারকারীর সাইকোসিস বা সিজোফ্রেনিয়ার ঝুঁকির সাথে যুক্ত করা হয়েছে।
  • গর্ভাবস্থায় গাঁজা ব্যবহার করলে গর্ভাবস্থার জটিলতার জন্য শিশুর ঝুঁকি বাড়তে পারে। এ কারনে, গর্ভবতী এবং বুকের দুধ খাওয়ানো ব্যক্তিদের গাঁজা এড়ানো উচিত।

যারা পরোক্ষ ভাবে গাঁজার ধোঁয়া গ্রহন করে তাদের ক্ষেত্রে এর প্রভাব

যখন একজন ব্যক্তি, নিশ্বাসের মাধ্যমে গাজাঁর ধোয়াঁ গ্রহন করে, সরাসরি গাঁজা গ্রহন করা ব্যক্তির পাশে বসে অথবা দাঁড়িয়ে, তখন এটিকে বলা হয় গাঁজা ধোঁয়ার “সেকেন্ডহ্যান্ড এক্সপোজার।” 

এ সেকেন্ড হ্যান্ড অথবা পরোক্ষ গ্রহনের কারনে অনেক জটিল কিছু ঝুঁকি দেখা দেয়।

হৃদপিণ্ড এবং ফুসফুসের ঝুঁকি সহ গাঁজা ধোঁয়ার সেকেন্ডহ্যান্ড এক্সপোজার বা পরোক্ষ গ্রহন কোন রকমের স্বাস্থ্য ঝুঁকির কারণ কিনা তা নিয়ে অনেক ধরনের প্রশ্ন তোলা হয়েছে। তবে সম্প্রতি কিছু গবেষনায়, সেকেন্ডহ্যান্ড গাঁজার ধোঁয়ায় অনেকগুলি একই রকম বিষাক্ত এবং ক্যান্সার সৃষ্টিকারী রাসায়নিক রয়েছে এবং সেই রাসায়নিকগুলির মধ্যে কিছু বেশি পরিমাণে রয়েছে৷

সেকেন্ডহ্যান্ড গাঁজার ধোঁয়াতে টেট্রাহাইড্রোকানাবিনল (THC) রয়েছে, যা গাঁজার বেশিরভাগ সাইকোঅ্যাকটিভ প্রভাবের জন্য দায়ী যৌগ। THC সেকেন্ডহ্যান্ড ধূমপানের মাধ্যমে শিশুদের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা সব থেকে বেশী, এবং সেকেন্ডহ্যান্ড গাঁজার ধোঁয়ার সংস্পর্শে আসা লোকেরা সাইকোঅ্যাকটিভ প্রভাব অনুভব করতে পারে, যেমন উচ্চ অনুভূতি। যেমন, একজন পিতা-মাতা, আত্মীয়, বা তত্ত্বাবধায়ক এবং THC-এর শনাক্তযোগ্য মাত্রাযুক্ত শিশু।

THC-এর সংস্পর্শে আসা শিশুরা নেতিবাচক স্বাস্থ্যের প্রভাবের ঝুঁকিতে রয়েছে। সেকেন্ডহ্যান্ড মারিজুয়ানা এক্সপোজার কীভাবে শিশুদের প্রভাবিত করতে পারে তা বোঝার জন্য আরও গবেষণা প্রয়োজন। অন্যান্য গবেষণা দেখায় যে বয়ঃসন্ধিকালে গাঁজার ব্যবহার বিকাশমান কিশোর এর মস্তিষ্কের উপর প্রভাব ফেলতে পারে এবং মনোযোগ, প্রেরণা এবং স্মৃতিশক্তিতে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।

সূত্রসমূহ

  • Malik Z, Baik D, Schey R. The role of cannabinoids in regulation of nausea and vomiting, and visceral pain. Current gastroenterology reports. 2015 Feb;17(2):1-9. 
  • Komol joha khan, 36lakh people of Bangladesh are being drug addicted, 2018 Oct
  • Groce E. The health effects of cannabis and cannabinoids: the current state of evidence and recommendations for research.

আমি আবেদিন সোহাগ। আমি নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে, ফার্মেসী বিভাগে ৫ম বর্ষে পড়াশোনা করছি। আমার স্থায়ী ঠিকানা চট্টগ্রাম।
পড়াশোনার পাশাপাশি ওয়েব কনটেন্ট আর ওয়েবসাইট নিয়ে সবসময়ই আগ্রহ কাজ করত এবং সেখান থেকেই কাজ করেছি ওয়ার্ডপ্রেস, পাইথন, জাভা স্ক্রিপ্ট (ভ্যানিলা) ইত্যাদি নিয়ে। নতুনত্বে বিশ্বাসী - তাই নতুনকে খুঁজে চলেছি নিরন্তর!

একটি প্রত্যুত্তর করুন

Your email address will not be published.