নাশপাতি Pears কেন খাবেন

পিয়ার বা নাশপাতি – আমরা কেন খাব?

477 বার পড়া হয়েছে
  • নাশপাতি একটি অ্যালার্জিমুক্ত ফল
  • কোষ্ঠকাঠিন্যে মল নরম করতে সাহায্য করে
  • আপনার স্নায়ু (nerves) শান্ত করতে সাহায্য করে
  • শরীরের জয়েন্টগুলিকে নমনীয় রাখতে সাহায্য করে

নাশপাতির কয়েক ডজন জাত পাওয়া যায় যাদের বেশিরভাগেরই আকৃতি একইরকম এবং খোসা অত্যন্ত পাতলা। এর মধ্যে এশিয়ান নাশপাতি দেখতে একটু ভিন্ন। পিয়ার একটি শীতল এবং অ্যালার্জিমুক্ত (যদি না আপনার ব্যক্তিগত কোন বিশেষ সংবেদনশীলতা না থাকে) ফল যা খাওয়ার সময় আপনার ভালোলাগা কাজ করবে।

পিয়ার বা নাশপাতি - আমরা কেন খাব?
এশিয়ান পিয়ার অথবা চাইনিজ নাশপাতি

নাশপাতি (Pear) জলে দ্রবণীয় ফাইবারের একটি চমৎকার উৎস যাতে আরও রয়েছে দরকারী পরিমাণে বিটা-ক্যারোটিন, বি ভিটামিন, কপার, ফসফরাস, পটাসিয়াম এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় উপাদান। কপার ইমিউনিটি (অনাক্রম্যতা), কোলেস্টেরল মেটাবলিসম (বিপাক) এবং স্নায়ুর ক্রিয়াকলাপে ভূমিকা পালন করে, যেখানে পটাসিয়াম পেশী সংকোচন এবং হার্টের কার্যকারিতাকে সহায়তা করে।

একটি মাঝারি আকারের নাশপাতি (১৭৮ গ্রাম) নিম্নলিখিত পুষ্টি সরবরাহ করে:

  • ক্যালোরি: ১০১
  • প্রোটিন: ১ গ্রাম
  • কার্বোহাইড্রেট: ২৭ গ্রাম
  • ফাইবার: ৬ গ্রাম
  • ভিটামিন সি: দৈনিক প্রয়োজনীয়তার ১২% (daily value)
  • ভিটামিন কে: দৈনিক প্রয়োজনীয়তার ৬%
  • পটাসিয়াম: দৈনিক প্রয়োজনীয়তার ৪%
  • তামা: দৈনিক প্রয়োজনীয়তার ১৬%

নাশপাতি কি জন্যে ভাল?

এলার্জিতে প্রিয় লিস্টে

নাশপাতিতে স্যালিসিলেট (salicylates) এবং বেনজয়েট (benzoate) কম থাকে এবং অন্যান্য অনেক ফলের তুলনায় কম অ্যালার্জেনিক হওয়ায় প্রায়শই অ্যালার্জি আক্রান্তদের জন্য সুপারিশ করা হয়। অনেক বাচ্চাদের প্রথম জুস হিসাবে নাশপাতি জুস দেওয়া হয়। অসুস্থতার পরে আরোগ্যের জন্যও পিয়ার একটি ভাল ফল।

কোষ্ঠকাঠিন্য

নাশপাতি দ্রবণীয় এবং অদ্রবণীয় ফাইবারের একটি চমৎকার উৎস, যা হজমের জন্য অপরিহার্য। এই ফাইবারগুলি মলকে নরম করে মলে জল ধরে রেখে পরিমাণ বাড়িয়ে তোলে এবং মলত্যাগে নিয়মিততা বজায় রাখতে সাহায্য করে।

উপরন্তু, দ্রবণীয় ফাইবার আপনার অন্ত্রে বিদ্যমান স্বাস্থ্যকর ব্যাকটেরিয়ার খাবার যোগায়। এই কারণে, ব্যাকটেরিয়ার এই খাবারগুলো প্রিবায়োটিক হিসাবে বিবেচিত হয়, যা স্বাস্থ্যকর বার্ধক্য (healthy aging) এবং উন্নত ইমিউনিটির সাথে সম্পর্কিত।

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্যে ব্যবহার উপযোগিতা – লো গ্লাইসেমিক ইনডেক্স

নাশপাতির গ্লাইসেমিক সূচক বেশ কম। যদিও নাশপাতিতে কিছু প্রাকৃতিক চিনি থাকে তবে এতে বিদ্যমান উচ্চ ফাইবার উপাদান আপনার রক্তে শর্করার পরিমাণ (একটি ফল খাওয়ার পর) বেশি না বাড়তে কাজ করে (যা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য একটি ভালো খাবার হিসেবে পরিগণিত হয়)। এছাড়াও, আপনি একটি ফল খাওয়ার পর বেশ কিছুক্ষণ পেট ভরা অনুভব করবেন এবং বাড়তি ক্যালরি থেকে দূরে থাকতে পারবেন।

রিউমেটিক অবস্থা

নাশপাতিতে পটাসিয়াম, পেকটিন এবং ট্যানিনের সংমিশ্রণ রয়েছে যা ইউরিক অ্যাসিড দ্রবীভূত করে গাউট এবং আর্থ্রাইটিসের মতো বাতজনিত রোগে আক্রান্তদের জন্য একটি আদর্শ খাবার হিসাবে সাহায্য করে।

কিভাবে আমি নাশপাতি (Pears) থেকে সেরাটা পেতে পারি?

খোসাসহ খাবেন

যেহেতু নাশপাতির ত্বকে যথেষ্ট পরিমাণে ফাইবার থাকে, তাই এই ফলটি খোসাসহ খাওয়া ভাল। এর বেশিরভাগ ভিটামিন সি এবং ডায়েটারি ফাইবার পাতলা ত্বকের মধ্যে থাকে।

অল্প পাকা ফল কিনুন

নাশপাতি পাকলে সহজেই এর খোসা নষ্ট হয়ে যায় তায় এগুলি অল্পপাকা কিনুন এবং বাড়িতে পাকতে দিন। তাহলে সংরক্ষণও সহজ হবে এবং বেশিদিন ধরে উপযোগ পাবেন।

শুকিয়ে খেতে পারেন

বেশিরভাগ শুকনো ফলের মতো, নাশপাতিতে প্রচুর পরিমাণে চিনি থাকে তবে এটি প্রাকৃতিক ফাইবারের একটি ভাল উৎস। কয়েকটি খেলে শরীরে শক্তি অনুভব করবেন।

নাশপাতির জুস

যদি আপনি গরম এবং উদ্বিগ্ন বোধ করেন তবে তাজা নাশপাতি রস শীতল অনুভূতি দেয় এবং মন ভালো করে দিতে পারে।

স্বাস্থ্য দর্পণ ডেস্কে একঝাক ফার্মাসিস্ট আপনাদের সামনে সঠিক ও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পরিবেশনে কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়াও ডাক্তার, পুষ্টিবিদ ও সমাজবিজ্ঞানীদের কাছ থেকে নিয়মিত লেখা সংগ্রহ ও তাদের মাধ্যমে রিভিউ করা হচ্ছে। সুস্বাস্থ্য নিশ্চিতে আমরা এসেছি আপনার আস্থা অর্জনের অবিচল মনোবল নিয়ে।

একটি প্রত্যুত্তর করুন

Your email address will not be published.